সোমবার | ১৭ জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ১৩ জমাদিউস সানি, ১৪৪৩ হিজরি | ৩ মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ | শীতকাল | রাত ৪:৪৩

সোমবার | ১৭ জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ১৩ জমাদিউস সানি, ১৪৪৩ হিজরি | ৩ মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ | শীতকাল | রাত ৪:৪৩

  • ফজর
  • যোহর
  • আসর
  • মাগরিব
  • এশা
  • সূর্যদয়
  • ভোর ৫:২৮ পূর্বাহ্ণ
  • দুপুর ১২:১২ অপরাহ্ণ
  • বিকাল ১৫:৫৬ অপরাহ্ণ
  • সন্ধ্যা ১৭:৩৬ অপরাহ্ণ
  • রাত ১৮:৫৩ অপরাহ্ণ
  • ভোর ৬:৪৩ পূর্বাহ্ণ

আল্লাহ যে দুই কারনে কাফের মুশরিকদেরও আজাব দেন না!

Share on facebook
Share on twitter
Share on whatsapp
Share on pinterest
Share on telegram

ফাইজুল ইসলাম:

আল্লাহ মানুষকে দুই কারণে আজাব দেন না, এমনকি কাফের মুশরিক পৌত্তলিকদেরও দেন না।

একবার আবু জেহেল আল্লাহর রাসুলের কাছে এসে বললেন,”মুহাম্মদ, আমাদের উপর নাকি আজাব আসবে, আল্লাহকে বলো আমাদের উপর পাথর বৃষ্টি নামানোর জন্য। তুমি বলেছো আল্লাহ নাকি অমুক অমুক সম্প্রদায়ের উপর পাথর বৃষ্টি নিক্ষেপ করেছেন। ”

এবার আল্লাহ আয়াত নাজিল করলেন। সূরা আনফালের ৩৩ নাম্বার আয়াত,

“ওমা কা’নাল্লহু লিইউ আজ্জিবাহুম ওয়া আংতা ফিইহিম, ওমা কানাল্লহু মুয়াজ্জিবাহুম ওয়াহুম ইয়াসতাগফিরুন। “

অর্থঃ আল্লাহ এমন নন যে, তুমি তাদের মধ্যে থাকবে অথচ তিনি তাদেরকে শাস্তি দেবেন এবং আল্লাহ এমনও নন যে, তারা ক্ষমা প্রার্থনা করবে অথচ তিনি তাদেরকে শাস্তি দেবেন।” (৮:৩৩)

এ আয়াতের তাফসিরে আল্লাহ বান্দার প্রতি দুই কারণে আজাব দেন না।

১) হে নবী মুহাম্মদ, আপনি তাদের মাঝে থাকা অবস্থায় আমি তাদের শাস্তি দিতে পারি না,

২) আরেকটি হচ্ছে বান্দা যখন ইস্তেগফার পড়ে আল্লাহর উপর আজাব দূর করে দেয়া ওয়াজিব হয়ে যায়।

হযরত আবদুল্লাহ ইবনে আব্বাস বলেন, আমাদের প্রত্যেকের জন্য আল্লাহ দুটি নিরাপত্তা দান করেছেন আল্লাহ।

১)আল্লাহর রাসুল (স:)  কাউলুল রসুলি ফি হা, সাইয়েদুল মুরসালিন,খতামান নাবিয়িন,আম্বিয়ায়ে সালেহীন, রিয়াজুস সালেহীন নবী মুহাম্মদ সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম। তিনি যতক্ষণ থাকবেন আল্লাহ ওই কওমের উপর আজাব দিবেন না।

২)ইস্তেগফার নামক নিরাপত্তা। এই নিরাপত্তা কেয়ামত পর্যন্ত আল্লাহ দয়া করে আমাদের দিয়েছেন।

মুহাম্মদ সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম থাকা অবস্থায় আল্লাহ ওই জনপদের উপর আজাব দিবেন না। তিনি পৃথিবী থেকে চলে গেছেন।

আব্বাস রাদিআল্লাহু তায়ালা আনহু বলেন,

“উম্মত যদি ইস্তেগফার ছেড়ে দেয় তবে ধ্বংস হয়ে যাবে।”

এরপর নবী মুহাম্মদ সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম মক্কা থেকে মদিনায় হিজরত করলেন। আল্লাহ সূরা আনফালের ৩৪ নাম্বার আয়াত নাজিল করলেন।

“এবং তাদের কী-বা বলার আছে যে, আল্লাহ তাদেরকে শাস্তি দেবেন না যখন তারা লোকদেরকে মসজিদুল হারাম হতে নিবৃত্ত করে? যদিও তারা এর তত্ত্বাবধায়ক নয়। মুত্তাকীগণই এর তত্ত্বাবধায়ক কিন্তু তাদের অধিকাংশই এটা সম্পর্কে অবগত নয়।” (৮:৩৪)

আল্লাহর নবীর উপস্থিতির কারণে আল্লাহ রাব্বুল আলামীন তার জাতি বা গোষ্ঠীকে শাস্তি দেয়া থেকে বিরত থেকেছেন। আল্লাহর নবী বা পয়গম্বরদের উপস্থিতি কোনো জাতি বা জনগোষ্ঠীর উপর আল্লাহর বিশেষ অনুগ্রহের শামিল। আর সূরা আনফালের ৩৪ নম্বর আয়াতে মুসলমানদের ওপর মক্কার মুশরিকদের অত্যাচার ও নিপীড়নের খণ্ডচিত্র তুলে ধরা হয়েছে। মক্কার কাফের ও মুশরিকরা মুসলমানদেরকে কাবা ঘরের পাশে নামাজ ও ইবাদত করতে দিত না। মুসলমানরা সেখানে নামাজ পড়তে গেলে কাফেরদের তীব্র বিরোধিতা এবং নানা ধরনের অত্যাচারের মুখোমুখি হতেন। এমনকি তারা মুসলমানদের হজ্জ বা ওমরাহ করারও সুযোগ দিত না। তারা নিজেদেরকে কাবা ঘরের তত্ত্বাবধায়ক মনে করতো। এ আয়াতে মহান আল্লাহ বলছেন, মুশরিকদেরকে তাদের এসব কাজের জন্য অবশ্যই শাস্তি দেয়া হবে। তারা নিজেদেরকে এমন এক পবিত্র স্থানের অভিভাবক ভাবছে যার উপযুক্ত তারা নয়। মসজিদুল হারাম বা কাবাঘর হচ্ছে আল্লাহর ঘর। মুশরিকরা জোর করে অন্যায়ভাবে এর দেখাশোনার দায়িত্ব গ্রহণ করলেও তারা কোনোভাবেই এর তত্ত্বাবধায়ক নয়। তারা তাদের অন্যায় আচরণের জন্য কেবল পরকালেই শাস্তি ভোগ করবে না, এ দুনিয়াতেও তারা নানা রকম বিপদ ও বালা-মুসিবতে জর্জরিত থাকবে।

৩৪ নাম্বার আয়াতের তাফসিরে বিশারদগণ বলেন,

“হে নবী মুহাম্মদ, আপনি তো এখন তাদের মাঝে নাই,এখন তাদের শাস্তি দিতে কোন বাঁধা নাই।

এরপরই বদর যুদ্ধে কাফেরদের প্রত্যেককে আল্লাহ শায়েস্তা করেন। কেননা তখন নবী মুহাম্মদ সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম তাদের মাঝে ছিলেন না।

নবী মুহাম্মদ সমগ্র মানবজাতির জন্য রহমত।তিনি শুধুই মুসলমানদের নবী নন,তিনি সমগ্র জাতির সর্বকালের সর্বসময়ের রহমত। কাফের, মুশরিকদের জন্য্ও রহমত।

সূরা আনফালের ৩৩ নাম্বার আয়াত অনুযায়ী আজাব হতে বাঁচার উপায় হচ্ছে নবী তাদের মাঝে উপস্থিত থাকা। যেহেতু নবী আমাদের মাঝে নেই। তাই আমাদের একমাত্র নিরাপত্তা হচ্ছে মহান রাব্বুল আ”লামীনের কাছে তওবা।

ফিচার লেখক :
ফাইজুল ইসলাম (১৭-১৮)
আইন বিভাগ, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়

থেকে আরো পড়ুন

Share on facebook
Share on twitter
Share on whatsapp
Share on pinterest
Share on telegram

Leave a Comment

  • ফজর
  • যোহর
  • আসর
  • মাগরিব
  • এশা
  • সূর্যদয়
  • ভোর ৫:২৮ পূর্বাহ্ণ
  • দুপুর ১২:১২ অপরাহ্ণ
  • বিকাল ১৫:৫৬ অপরাহ্ণ
  • সন্ধ্যা ১৭:৩৬ অপরাহ্ণ
  • রাত ১৮:৫৩ অপরাহ্ণ
  • ভোর ৬:৪৩ পূর্বাহ্ণ

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন

ফের আলোচনায় ড. আফিয়া সিদ্দিকী

টেক্সাসের কোলিভিল শহরের সিনাগগে হামলা হয়েছে। প্রায় ১০ ঘণ্টা দমবন্ধ উৎকণ্ঠায় কাটিয়েছিলেন সিনাগগে থাকা চারজন মানুষ। যুক্তরাষ্ট্রের এই অঙ্গরাজ্যের ওই উপাসনালয় থেকে অবশেষে মুক্ত করা হয়েছে তাদের। নিরাপত্তা বাহিনীর বিশেষ অভিযানের মধ্য দিয়ে অবসান হলো তাদের জিম্মি সংকটের। নিহত হয়েছে বন্দুকধারী। কিন্তু বিভিন্ন মিডিয়ায় ইতোমধ্যে প্রচার হয়ে গেছে জিম্মিকারী ছিলেন

ভারতে সংখ্যালঘু হত্যার ডাক দিয়ে গ্রেপ্তার হলেন ধর্মগুরু

ভারতের উত্তরাখণ্ড রাজ্যের হরিদ্বারে ‘ধর্মীয় সম্মেলনে’ একটি নির্দিষ্ট সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের মানুষকে গণহত্যার ডাক দেওয়ার অভিযোগে