মাদক-সন্ত্রাস রোধে ইসলামী আইনের বিকল্প নাই -অধ্যক্ষ ইউনুছ আহমদ

ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ-এর মহাসচিব অধ্যক্ষ হাফেজ মাওলানা ইউনুছ আহমাদ বলেন, ধর্মীয় আচার মেনে চললে দেশে মাদক ও সন্ত্রাস হ্রাস পেয়ে ভারসাম্যপূর্ণ সমাজ প্রতিষ্ঠিত হবে। মাদক বিরোধী আইনের নামে মাদককে আস্কারা দিলে দেশ ধ্বংসের অতল গহবরে তলিয়ে যাবে।

আজ শনিবার আইএবি মিলনায়তনে ইসলামী যুব আন্দোলন ঢাকা মহানগর দক্ষিণের উদ্যোগে আয়োজিত “মাদক, সন্ত্রাস, উগ্রবাদের ছোবল থেকে যুবসমাজকে রক্ষায় আমাদের করণীয়” শীর্ষক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে
অধ্যক্ষ ইউনুছা আহমাদ আরও বলেন, ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম দ্য গার্ডিয়ান বাংলাদেশের মাদক চোরাচালান এবং ব্যবসা নিয়ে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করে৷ তাতে বাংলাদেশকে মাদক চোরাচালানের রুট হিসেবে চিহ্নিত করা হয়৷
তাতে বলা হয়, দক্ষিণ এশিয়া বা এশিয়ার বাজারে বিভিন্ন ধরনের মাদক নিয়ে যাওয়ার জন্য নিরাপদ রুট হিসেবে বাংলাদেশকে ব্যবহার করা হচ্ছে৷ এ অঞ্চলের বন্দরগুলোর দুর্বল নিরাপত্তাব্যবস্থার কারণেই চোরাচালানের রুট হিসেবে এ পথ পাচারকারীদের কাছে জনপ্রিয় হয়ে উঠছে৷ সুতরাং সরকারকে এখনই সচেতন হতে হবে অন্যথায় বিশ্ব দরবারে বাংলাদেশের মর্যাদা আরও ক্ষুন্ন হবে।

ইসলামী যুব আন্দোলন ঢাকা নগর দক্ষিণ সভাপতি মুফতী মানসুর আহমদ সাকীর সভাপতিত্বে ও সাধারন সম্পাদক শফিকুল ইসলামের সঞ্চালনায় আলোচনা সভায় প্রধান বক্তার হিসেবে আলোচনা করেন ইসলামী যুব আন্দোলনের কেন্দ্রীয় সভাপতি কে এম আতিকুর রহমান। তিনি বলেন, সম্ভাবনাময় যুব সমাজের চরিত্র হননের প্রধান উপাদান মাদক, ইসলামী কালচার ও আইন না থাকায় যুব সমাজ আজ পথ হারাচ্ছে। মাদকাসক্ত সমাজকে আলোর পত দেখাতে ইসলামী যুব আন্দোলনের কর্মীদের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে হবে।

আলোচনা সভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন ইঞ্জিনিয়ার আশরাফুল আলম, মাওলানা এবিএম জাকারিয়া, অধ্যাপক ফজলুল হক মৃধা। বক্তারা যুব সমাজের নৈতিক ও চারিত্রিক অধঃপতন নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেন।

অন্যান্যের মধ্যে আরও বক্তব্য রাখেন, যুবনেতা মাহবুবুর রহমান, জানে আলম সোহেল, এবিএম শামিম আহমদ, মুফতী এইচ এম আবু বকর সিদ্দীক, মুফতী শওকত উসমান, আল আমীন সোহাগ, তসলিম উদ্দিন রুবেল, তানজিল হাসান প্রমুখ।

আরো পড়ুন পোস্ট করেছেন

Comments

লোড হচ্ছে...
শেয়ার হয়েছে