আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের রিপোর্ট: আগামীতে বাংলাদেশের কঠিন দিন আসছে

0
97

বাংলাদেশের উপর বৈশ্বিক জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব সম্পর্কিত আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল IMF এর ২০১৯ সালের কান্ট্রি রিপোর্ট সম্প্রতি প্রকাশিত হয়েছে যাতে আগামী দিনে কঠিন পরিস্থিতির চিত্র তুলে ধরা হয়েছে।

ওই প্রতিবেদনে বলা হয়েছে জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে সমুদ্রপৃষ্ঠের উচ্চতা বৃদ্ধির কারণে বাংলাদেশের এক-তৃতীয়াংশ মানুষ বাস্তু চ্যুত হওয়ার ঝুঁকিতে রয়েছেন। এতে আরও বলা হয়েছে উপকূলীয় অঞ্চলে ভাঙনের ফলে ২০৫০ সাল নাগাদ দেশটি ১৭ শতাংশ ভূমি হারাতে হতে পারে, যার ফলে খাদ্য উৎপাদন ৩০ শতাংশ পর্যন্ত কমে যেতে পারে এবং একই সাথে বসত হারানো মানুষের ভিড়ে শহরে অভিবাসীর সংখ্যাও বাড়তে পারে।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে জলবায়ু পরিবর্তনের কারনে ঝুঁকিতে থাকা প্রথম সারির দেশগুলোর মধ্যে বাংলাদেশ অন্যতম। এ বিষয়ে বাংলাদেশ পরিবেশ বাচাও আন্দোলনের চেয়ারম্যান আবু নাসের খান ভয়েস অব অ্যামেরিকার সাথে কথা বলেছেন।

তাঁকে প্রশ্ন ছিল আইএমএফ এর প্রতিবেদনে বাংলাদেশের ওপর বৈশ্বিক জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাবের বিষয়ে যে সকল তথ্য উঠে এসেছে তেমনটা যদি সত্যিই ঘটে তবে কেমন পরিস্থিতির সৃষ্টি হবে বলে আপনি মনে করেন?

আবু নাসের বলেন, বাংলাদেশ খুবই নাজুক অবস্থার মধ্যে আছে। যে অবস্থা চলছে এতে করে বাংলাদেশ ভুগতে ভুগতে এক সময় একটি জনবহুল এলাকা সমুদ্রপৃষ্ঠে হারিয়ে ফেলবে। কিছু প্রাকৃতি দুর্যোগ যেমন ভূমিকম্প, ঘূর্নিঝড় খুব বেশি দেখা দিবে। এখনই মানুষ সমুদ্রে মাছ ধরতে পারছে না আগের মত। আরেকটা বিষয় হলো, ঋতুর পরিবর্তন হবে। এতে করে খাদ্য উৎপাদনে ব্যাঘাত সৃষ্টি হবে এবং খাদ্য ঘাটতি হবে।

তবে এব্যাপারে উন্নত দেশগুলো তেমন কোনো সহযোগিতা করছে না। যার ফলে সমস্যা কবলিত দেশগুলো আরো সমস্যার সম্মুখিন হচ্ছে। বিশেষ করে বাংলাদেশ বিশাল এক ক্ষতির সম্মুখিন হতে চলছে।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব থেকে বাচতে বাংলাদেশকেই উদ্যোগী হতে হবে কারণ পরমুখাপেক্ষী হয়ে থাকলে এর দুর্ভোগ এদেশের মানুষকেই ভুগতে হবে।সূত্র: ভয়েস অব আমেরিকা /আরবিএম